Akhi alamgir hot sex x cam


13-Aug-2020 08:15

Akhi alamgir hot sex x cam-64

hiv positive professionals dating

”চোখ কচলাতে কচলাতে বিরক্তি মিশ্রিত কণ্ঠে বললাম, “হ্যাঁ,ভাঙল। দরজাটা খোলা রাখছো কেন? ”–“আরে ভাইয়া,সেই কথাই তো বলতে চাচ্ছিলাম। আমাদের ক্লাস আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে মানে ক্লাস সাসপেন্ড করা হয়েছে।” শাওন দাঁত গুলা বের করে বলল।আমি ভেতরে ভেতরে ভীষণ খুশি হলাম। গত কয়েকদিন হতে আম্মুকে খুব দেখতে ইচ্ছা করছিল। ভাবছিলাম বন্ধটাতে যাওয়া যাবে চট্টগ্রাম। আমার আম্মা ওখানেই ছিলেন তখন। বাহিরে খুশিটা দেখালাম না। নির্লিপ্ত কণ্ঠে বললাম, “তাই নাকি?

”–হ্যাঁ ভাইয়া,মুনীম স্যার এসে বলে গেলেন এই মাত্র। আপনাকে ঘুমে পেয়ে আর ডিস্টার্ব করেন নাই। আর এই জন্যই দরাজাটা খোলা।ও হয়ত আমার কাছ থেকে অন্ততঃ একটা হাসি আশা করছিল। কিন্তু আমি সেই একই নির্লিপ্ত কণ্ঠে বললাম, “ভাল।”এই বলে গেলাম টয়লেটে। ভীষণ হাগা ধরছিল। পেশাবও ধরছিল প্রচণ্ড। আমাদের টয়লেটটা রুম থেকে একটু দূরে ছিল। রুমের সামনের করিডোরটা দিয়ে হেঁটে যাওয়া লাগত। পথে আবার সুমনের সাথে দেখা। ও হল আমার ভাইয়ের মত। সেই ক্লাস ওয়ান থেকে এখনও আমার সাথে তার বন্ধুত্ব আছে। খুব ভালো ছেলে। তখন ও পড়ত আর্কিটেকচারে আর আমি পড়তাম কম্পিউটার সায়েন্সে। ওর ফ্যামিলিও তখন চট্টগ্রাম। দুইজন সবসময় একসাথে যাওয়া আসা করতাম। দেখা হওয়ার সাথে সাথে সুমন আমার দিকে একটা হাসি দিয়ে বলল, “দোস্ত,খালাম্মার লগে দেখা করতে যাবি না? –একটা সুষম সপ্তভুজ আঁকতে হবে। তাও আবার একটা কম্পাস আর স্কেল দিয়ে,পারবা?

তে পড়ত। সেকেন্ড ইয়ারে। পরে এফ.সি.পি.এস’ও শেষ করছে। এখন সুন্দর ঘরে বসে আছে। সে নাকি টায়ার্ড হয়ে গেছে। ডাক্তারি করতে পেইন লাগে। এই মেয়েটাকে যখন আমি প্রথম দেখেছিলাম তখনই আমার মনে হয়েছিল মেয়েটার মাথায় কিছু না কিছু ছিট তো আছেই। আর এখনও জীবনের প্রতিটা ডিসিশনে সেটার পরিচয় খুব ভাল ভাবেই দিচ্ছে। তবুও কেন জানি মেয়েটাকে ভাল লাগে। হয়ত মানুষ ভালো এই জন্য।ফোন রিসিভ করতেই সেই জ্বালাময়ী কণ্ঠ কানে এল।–হ্যালো,রিশাত,কেমন আছো? –আমি ভীষণ ভালো আছি। তার উপর তোমার জন্য একটা, না না, অনেকগুলা সারপ্রাইজ আছে, তাই আরও বেশি বেশি ভালো।–কি সারপ্রাইজ? –না,ভার্সিটি বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে।–“তাই নাকি?

–তুমি এক্ষন আমার বাসায় আসো, আসলেই টের পাবা।–কি টের পাবো, সারপ্রাইজ? ” সপ্না ভীষণ খুশি হয়ে বলল।সপ্নার এটা আরও একটা সমস্যা। যখন খুশি হয় তখন সেটা অনেক বেশি করে প্রকাশ করে, আবার যখন কষ্ট পায় সেটা যত বড়ই হোক না কেন মতেই কষ্ট বুঝতে দেয় না অন্যকে। এজন্য আমি কয়েকবার মিস গাইডও হয়েছি।–হ্যাঁ, তাই ভাবতেছি Ctg যামু গা। আম্মুর সাথে দেখা করতে।–খুবই ভাল, যাও দেখা করে আসো আম্মুর সাথে। তবে আমার একটা রিকোয়েস্ট আছে।–কি? –মানে কিছু না। তুমি সোমবারের টিকেট কাট। বাকিটুকু পরে বুঝাইতেছি।–বাসায় আংকেল আছে না?

Akhi alamgir hot sex x cam-37

Lagos porn

”আমি বললাম, “চা ই দাও। Deep sugar with light liquor.”–“ঠিক আছে,আমি আনতেছি। তারপর দুইজনে মিলে গল্প করবো।” এই বলে ও চা আনতে গেল।আমি স্পোর্টস চ্যানেল গুলা খুজতেছিলাম। HBO Cross করার সময় দেখলাম, টাইটানিক দেখাইতেছে। আমি HBO তে একটু hold করছিলাম। ঠিক ঐ মুহূর্তে সপ্না চা এর মগ হাতে এসে ঢুকল। টিভিতে চোখ দিয়েই চিৎকার করে হাত নাড়তে নাড়তে বাচ্চা মেয়েদের মত বলে উঠল, “টাইটানিক, টাইটানিক আমি দেখবো, আমি দেখবো।” তার হাতে যে চা আছে সেটার কথা সে একদমই ভুলে গেল। ফলে যা হবার তাই হল। খানিকটা চা পড়ে গেল নিচে।চা খাওয়া হলে আমরা দুইজন এক কাঁথার নিচে লাইট নিভিয়ে জড়াজড়ি করে মুভিটা দেখলাম। কাঁথাটা কিভাবে আসল সেটা একটু বলি। মুভিটা দেখার জন্য নাকি খুব রোমান্টিক পরিবেশ লাগে। সপ্নার কথা। তাই সে তখন এ.সি’তে রুম টেম্পারেচার ২০ ডিগ্রী তে সেট করে দিল। ওর বক্স খাটের ড্রয়ার থেকে একটা কাঁথা বের করে গায়ে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে পুরো মুভিটা শেষ করল। আমিও খুব এনজয় করেছিলাম মুভিটা। টাইটানিক আগেও দেখছি এই ঘটনার পরেও দেখছি। কিন্তু ঐ বারের মত মজা পাই নাই।মুভিটা শেষ করে সাড়ে ন’টার দিকে আমরা খেতে বসলাম। ও কাচ্চি বিরানী রান্না করছিল । অনেক মজা হয়েছিল। খেয়েছিলামও প্রচুর। সপ্না কথায় কথায় বলল ওর আব্বু নাকি রেড সেভেন এনেছে। আর সেটা তখন ওদের ফ্রিজেই ছিল। আমি শুনে তো খুশি। যাক অনেক দিন পরে খাওয়া যাবে। খাওয়া শেষ করে আমরা ফ্রিজ থেকে ওয়াইনের বোটল আর গ্লাস নিয়ে সপ্নার বেডরুমে গিয়ে বসলাম। দুজন মিলে গল্প করছিলাম। তখন বাজে সাড়ে দশটার মত। হঠাৎ কথা উঠল সেক্স নিয়ে ।–আচ্ছা,রিশাত,তুমি কি পর্ণোমুভি দেখ?–তুমারে আগেও কইছি এখনও কইতাছি যে আমি শুধু টাকার জন্য পড়াই না। আমি যদি ঢিলা দেই তাহলে আমার স্টুডেন্টের ভবিষ্যৎ অন্ধকার।ও ঠোঁটটাকে একটু বাঁকিয়ে বলল, “আচ্ছা, ঠিক আছে বাবা, বাদ দাও। তোমার জন্য আমি ডাইনিং সাজাইতেছি, তুমি একটু কষ্ট করে হাত মুখ ধুয়ে আসো।”আমার খুব ঘুম আসছিল তবুও গেলাম ওয়াশরুমে। একটু পর ডাইনিং এ এসে পুরা টাস্কি খেলাম। বারো সিটের একটা ডাইনিং এর আর এক ইঞ্চিও মনে হয় খালি ছিল না। পুরা টেবিলে হাজার রকমের নাস্তা।“এত নাস্তা খাবে কে?” আমি চেয়ারে বসতে বসতে সপ্না কে বললাম। ও তখন কি একটা আনতে কিচেনে গিয়েছিল। এসে আমার পাশে দাঁড়িয়ে একটা দুষ্ট হাসি হেসে বলল, “কেন আমার হবু বর?আমি খেঁচলে তো একটা বোটল এর মুখাও ভরে না।–তখন তো আর আমি থাকি না। যাকে দেখে তুমি হান্ড্রেড পারসেন্ট এক্সাইটেড হবা।ও বসা থেকে আবার আমার পাশে শুয়ে পড়ল। মনে হয় টায়ার্ড হয়ে গিয়েছিল। তাই রেস্ট নিচ্ছিল। কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে শুয়ে রইল। আর আমি পুরো পরিবেশটা এনজয় করছিলাম। একটু পর বলল, “আমাকে দেখবা না?

”–আমি আগেই তো কইলাম It’s up to you ।ও উঠে বলল, “উঠে বস।” আমি উঠে বসলাম। ঠিক বসলাম না,বাম হাতটা উপরে রেখে ডানকনুই এর উপর ভর দিয়ে আধ শোয়া হয়ে রইলাম। ও উঠে গিয়ে বিছানার ডান পাশে গিয়ে ডিম লাইটটার ঠিক নিচে দাঁড়ালো। হালকা গোলাপি আলো এসে ওর উপর পড়ছিলো। আর ওর চুলে সেটা যেন রিফ্লেক্ট করছিল। ওকে তখন সত্যিকারের সুন্দরী মনে হচ্ছিল আমার কাছে। আমার দিকে তাকিয়ে একটু হেসে মৃদু স্বরে বলল, “তোমার কাছে নারীর সংজ্ঞা কি আমি সেটা জানি না। তবে যতটুকু তোমাকে চিনেছি তাতে তোমাকে অনেক ভালো একটা মানুষ মনে হয়েছে। প্রতিটা ছেলের কাছেই ‘মেয়ে’ নামক শব্দটা একটা ফ্যন্টাসি থাকে। তোমার কাছেও এটা ফ্যন্টাসি আমি জানি। অনেক ছেলেরাই মেয়েদেরকে ভুল বুঝে। তোমার ধারণা কি সেটা আমি জানি না, আজকে আমি তোমার কাছে শুধুই আমি না, আমি তোমার কাছে পুরো নারী জাতিকে রিপ্রেজেন্ট করছি। ধরে নাও এটা আমার প্রতি তোমার ভালবাসার একটা গিফট ।”এরপর ও আস্তে করে পাঞ্চক্লিপ্টা খুলে ফেলল। ওর চুল গুলা পিঠ পর্যন্ত নেমে গেল। আমি একটাও কথা বলছিলাম না। শুধুই দেখছিলাম । ধীরে ধীরে ও টি-শার্টটা উপরে তুলতে লাগলো। সুন্দর একটা ফর্সা স্লিম পেট আমার চোখের সামনে ফুটে উঠল। আস্তে আস্তে ও টি-শার্ট খুলে ফেলল । দেখলাম ও টি-শার্টটার সাথে ম্যাচ করে ব্রা পড়েছিল। মেরুন কালারের টিশার্টের সাথে মেরুন কালারের ব্রা। খুব সুন্দর মানিয়েছিল। আমি অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম। একটু পর ব্রা টাও খুলে ফেলল। ব্রা খোলার সাথে সাথে ওর দুধ গুলো বেরিয়ে এল। বেশি বড়ও ছিল না আবার ছোটও না। ওর শরীরের সাথে ফিট ছিল। খানিক বাদে ও ট্রাউজারটাও খুলে ফেলল। ভেতরে আবার ম্যাচ করে প্যান্টিও পড়েছিল। কিছুক্ষণ পর ও সেটাও খুলে ফেলল। পুরো নগ্ন অবস্থায় ওকে অন্যরকম সুন্দর লাগছিল যেন স্বর্গের এক অপ্সরী । আমি সত্যিকারের বিমোহিত হওয়ার অনুভূতিটা অনুভব করছিলাম তখন। আমার কাছে মনে হল আমার পুরো জগৎটা ওর সৌন্দর্যের কাছে এসে থমকে দাড়িয়েছে।ও হাতদুটোকে কোমড়ে রেখে,মাথাটাকে একটু কাত করল একই সাথে ডান পায়ের উপর ভর দিয়ে,শরীরটাকে একটু বাঁকিয়ে দাঁড়ালো । তারপর আমার দিকে হাসিহাসি মুখে তাকিয়ে বলল, “দেখতে কেমন আমি?

ফোন নাম্বার চালাচালির পর ক্যাম্পাসে আসলাম। আসতে না আসতেই দেখি সপ্না কল দিছে। বলল ওকে নিয়ে ঘুরতে যেতে। যেই মানুষটা আমার,চার সাড়ে চার ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর কষ্ট বাঁচায় দিল তার জন্য মিনিমাম কৃতজ্ঞতা দেখাতে হলেও আমার সেইদিন তার রিকোয়েস্টটা এক্সেপ্ট করা ছাড়া কোন উপায় ছিল না। গেলাম দেখা করতে। সারা দিন ঘুরলাম আমরা। অনেক এনজয় করেছিলাম। এমন করে ও প্রায়ই আমাকে কল দিত আর আমরা ঘুরতে যেতাম। পরে অবশ্য শুধু কৃতজ্ঞতা থেকে যাই নাই, ভালো লাগত তাই যেতাম। আমাদের মাঝে বেশ ভালই একটা রিলেশান বিল্ড আপ করেছিল। কিন্তু কিভাবে যে সেটা প্রেম হয়ে গেল সেটা আমার মাথায় ঢুকে নাই।একদিন সপ্না আমারে হাউমাউ কইরা কানতে কানতে কয় ও নাকি আমারে ভালবাসে। আমার আসলে বিয়ার আগে প্রেম জিনিসটা ভয় লাগত। পরে দেখা যাবে আমি যেই মেয়েটারে এতদিন ভালবাসতাম হ্যায় আমার ফ্যামিলিরে নেগলেক্ট করতাছে। যেটা আর যেই সহ্য করতে পারুক আর নাই পারুক আমি একদম সহ্য করতে পারি না। আরেকটা কারণ ছিল আমার মা। আমার আম্মু যদি না থাকত তাহলে হয়ত আমি আজকে এত ভালো অবস্থায় থাকতে পারতাম না। সত্যি বলতে কি আমাদের পরিবারটা চলত আমার আম্মার উপর। আব্বু কিছুই করত না। ডালে ডালে জীবন কাটাইত। আর আম্মা আমারে চাকরী কইরা আইন্যা খাওয়াছে,পড়াইছে,বড় করছে। তাই আম্মুরে কষ্ট দিতে এমন কি একটা কথা এদিক সেদিক করতেও খুব ভয় লাগত। আর তাছাড়া এস.এস.সি পরীক্ষায় রেজাল্ট খারাপ কইরা মানে আশানুরূপ রেজাল্ট করতে না পাইরা আম্মুরে খুব কষ্ট দিছিলাম। যদিও ইচ্ছা করে খারাপ করি নাই। হয়ত এটা একটা Irony fate ছিল। কিন্তু তখন আর আম্মুর মুখের দিকে লজ্জায় তাকাইতে পারি নাই। অবশ্য আম্মু কখনও আমাকে বকাঝকা করেছেন বলে আমার মনে পড়ে না,এমনকি আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধেও কখনও যান নাই। তাই প্রেম করলে হয়ত কিছু বলতেন না,তবুও আমার বিয়ে তো আর শুধু আমার বিয়েই না, আম্মুর ছেলেরও বিয়ে। তারও পছন্দ থাকতে পারে। তাই কোন দিন প্রেম ট্রেম করব চিন্তা করি নাই।কিন্তু এদিকে আবার সপ্নার কান্নাকাটি চলতাছিল। সব ভাইব্বা,চিন্তা কইরা সপ্নারে কইলাম, “প্রেম করতে পারি তবে তোমারে এমন হইতে হইবো যেন আম্মু তোমারেই তার ছেলের বউ হিসেবে পছন্দ করে, আর যদি আম্মা মানা করে তাহলে কিন্তু আমি কিছুই করতে পারুম না।।” ও কইল, “ঠিক আছে।” ব্যাস শুরু হইল আমাগো প্রেম।এখন আমাগো রিলেশানের সাত বছর চলতাছে। আর বিয়ের দুই বছর আজকে পূর্ণ হইল। এখন সপ্না আম্মার অনেক প্রিয় হয়ে গেছে। সারাদিন দুইজনে অনেক মজা করে। আর আম্মা সুখে আছে বলে আমিও খুশি। যাই হোক এবার আসি কাহিনীতে।সপ্নার বাসায় ঐদিন গেলাম বিকেল সাড়ে পাঁচটায়। মার্চ মাসের গরম চলছিল। ঐ দিন প্রচন্ড গরমও পড়েছিল। তবে সুন্দর ঝিরঝিরে বাতাস ছিল বিকেলটাতে। গায়ের টি শার্ট টাও ঘামে ভেজা। যার জন্য কিছুটা ঠাণ্ডা লাগছিল । সপ্নাদের ফ্ল্যাটটা ছিল বনশ্রীতে। এখন অবশ্য ওটা ভাড়া দেয়া। ফ্ল্যাটটায় একটুও কার্পণ্য করে নাই ডিজাইনার। বিশাল বিশাল রুম, প্রত্যেকটার সাথে একটা বিশাল ব্যলকনি। এর মাঝে ওদের বাসা আবার বারো তালায়,সেকেন্ড টপ ফ্লোর। মানে আলো বাতাসের কোন অভাব নাই। বাসাটার ইন্টেরিওর ডিজাইনিংটাও খুব যত্ন করে করা হয়েছে। আমার কাছে সবচেয়ে সুন্দর লাগে ওদের ওয়াশরুম গুলা। ফ্ল্যাটটাতে যেরকম টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছিল সেটা তখন খুব রেয়ার ছিল। আংকেল অনেক শৌখিনও ছিলেন,তার উপর টাকা পয়সার কোন অভাব ছিল না। হয়ত এ জন্যই এত সুন্দর একটা বাসা খুঁজে পেয়েছিলেন। তখন ভাবতাম কবে এমন একটা ফ্ল্যাটের মালিক হতে পারবো। পরে যখন টাকা পয়সা হইছে তখন আর ঐরকম ফ্ল্যাট পাই না। সব কমার্শিয়াল। ঢাকা, চট্টগ্রাম সব খুইজা ফালাইছি কিন্তু পাই নাই। আব্বু মানে আমার শ্বশুর যখন জানলেন ওটা আমার খুব প্রিয় তখন অবশ্য আমাকে ফ্ল্যাটটা দিয়ে দিতে চেয়েছিলেন । কিন্তু লজ্জায় পড়ে মানা করেছিলাম ।আমি লিফট থেকে নেমে সপ্নাদের বাসায় কল বেল দিতেই ও দরজা খুলল। একটা টি শার্ট আর ট্রাউজার পড়নে ছিল। আমি বাসাতে ঢুকে ব্যাগটা রেখে ড্রইং রূমে সোফাতে গা এলিয়ে দিলাম। ও আমার সামনে এসে মিটমিট করে হাসছিল। আমি এগুলা দেখে দেখে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। তাই নির্লিপ্ত ছিলাম।–কি খাবা?



Currently, we are in the process of adding Video Chat rooms in our free Online Kolkata Chat Room. Kolkata Chat Room is one of the best chat rooms around.… continue reading »


Read more

Consider reaching out to one of our licensed counselors.… continue reading »


Read more

He would repair it for her, whether it has been the final thing he or she would.… continue reading »


Read more

She hosted the late-night talk show Chelsea Lately on the E!… continue reading »


Read more

Date rape drugs may come in powder, tablet or liquid form, and don't always have a noticeable taste or smell.… continue reading »


Read more